Photo: Google

গাড়ির পা দিয়ে কি হবে? তাইতো? গাড়ির পায়ের কথা ভাবা হয়েছে প্রাকৃতিক দূর্যোগে মানুষকে উদ্ধার করার জন্য। পা’গুলো রোবটের মত। এবং এই গাড়িকে চালিয়ে নিয়ে যাওয়া যায় হেঁটে যাওয়ার মত করে। যে কোন কষ্টকর ভূমিতে উঠতে পারে।

ধরুন রানা প্লাজার কথা। তখন উদ্ধারকাজের জন্য কত কিছু ব্যবহার করতে কত বেগ পেতে হয়েছে। পা’ওয়ালা একটি গাড়ি থাকলে ধ্বংসাবশেষের ওপর সহজেই উঠে গিয়ে গাড়ির সেন্সর দিয়ে নীচে মানুষ আছে কিনা, কোথায় ক’জন আছে, তা বুঝতে পারতো।
প্রাকৃতিক দূর্যোগের পর ৭২ ঘন্টা জীবন বাঁচানোর জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু বনে আগুন লাগলে, ভূমিকম্প হলে, সাইক্লোনের পর কিংবা বন্যার মত প্রাকৃতিক দূর্যোগে মানুষ ও গবাদি পশু খুঁজে উদ্ধার করা একটি দুষ্কর কাজ হতে পারে।
যখন সুনামি বা ভূমিকম্প হয়, তখন সাধারণ গাড়ি ধ্বংসাবশেষের কাছে গিয়ে খুব বেশি কিছু করতে পারে না। পায়ে হাঁটা এই গাড়ি সব যায়গায় পৌঁছুতে পারবে বলে আশা করা হচ্ছে। বন্যার ধ্বংসাবশেষ, ভূমিকম্পে ভেঙ্গে যাওয়া ধ্বংসাবশেষের স্তুপ – সবকিছুর ওপর উঠতে পারবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এই গাড়ি তার পাগুলো গুটিয়ে আবার সাধারণ গাড়ির মত চলতে পারবে।
ধরুণ আপনার নিজের গাড়ি এই বৃষ্টি জলাবদ্ধ দেশের কোন এক শহর বা উপশহরে রাস্তার জলে ডুবে গেছে, বা পশ্চিমা দেশের কোন এক স্থানে বরফের নীচে আটকে গেছে। এই গাড়ি তখন কাজে লাগবে আপনার গাড়ি উদ্ধারে। আপনাকে উদ্ধারে।

চিন্তা নেই; এই গাড়ি ব্যাটারীতে চলবে…

কোরিয়ার একটি কোম্পানি এই গাড়ি তৈরী শুরু করেছে। নাম রেখেছে “এলিভেট”…

দেখা যাক…

মানুষ বাঁচানোর যন্ত্রকে শুভেচ্ছা…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

What Mashrafe meant

The former skipper of our national cricket team and now a member of the parliament, Mashra…